মেঘনা নদীতে ভাসলো আনন্দ শিপইয়ার্ডের তৈরি রাঙ্গাবালি

মেঘনা নদীতে ভাসলো আনন্দ শিপইয়ার্ডের তৈরি রাঙ্গাবালি

নিজস্ব প্রতিবেদক :
পায়রা সমুদ্র বন্দরে ব্যবহারের জন্য আনন্দ শিপইয়ার্ড নির্মিত বয়া লেয়িং নৌযান ‘রাঙ্গাবালি’র উদ্বোধন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টম্বর) সকাল ১১ টায় নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের মেঘনাঘাট এলাকার আনন্দ শিপইয়ার্ড এন্ড শ্লিপওয়েজ নামের একটি জাহাজ নির্মাণ প্রতিষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে রাঙ্গাবালি নামের এ নৌযানটি মেঘনা নদীর পানিতে ভাসানো হয়।

আগামী এক মাসের মধ্যে এ জাহাজটি সোনারগাঁয়ের মেঘনা ঘাট থেকে পায়রা বন্দরে পৌছাবে বলে জানিয়েছেন আনন্দ শিপইয়ার্ড এন্ড শ্লিপওয়েজ কর্তৃপক্ষ। বন্দরে জাহাজ চলাচলের জন্য নৌ পথ চিহ্নিতকরণে বয়া ব্যবহার করা হয়।

একেকটি বয়ার ওজন ১০ থেকে ১৬ টন পর্যন্ত হয়ে থাকে। পানিতে ভাসমান বয়ার ওপরে লাল ও সবুজ সংকেত বাতি বা বীকন থাকে। যার সাহায্যে জাহাজ চলাচল করে। আনন্দ শিপইয়ার্ডে নির্মিত রাঙ্গাবালি জাহাজে ২০ টন ধারনক্ষম একটি ক্রেন রয়েছে। যা দিয়ে বয়া স্থাপন ও স্থানান্তরের কাজ চলবে। ৩৪ কোটি ৪৯ লাখ টাকার বয়া লেয়িং নৌযান ‘রাঙ্গাবালি’ নির্মাণে আনন্দ শিপইয়ার্ড এন্ড শ্লিপওয়েজ লিমিটেডের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয় পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষ।

রাঙ্গাবালি নদীতে ভাসানো অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন, পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের উপ প্রকল্প পরিচালক কায়সার মাহমুদ, পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের ডক মাস্টার ক্যাপ্টেন এস এম শরিফুল ইসলাম, ডেপুটি সুপারভিশন কনসাল্টেন্ট মনিরুল ইসলাম, আনন্দ শিপইয়ার্ড এন্ড শ্লিপওয়েজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. আব্দুল্লাহ হেল বারী, আনন্দ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফরুজা বারী, উপ ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল্লাহ নাহিদ নিগার, নির্বাহী পরিচালক তারিকুল ইসলাম, পরিচালক (কারিগরি) সাইফুল ইসলাম ও আব্দুল্লাহ নাজমা নওরোজ প্রমুখ।

পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের উপ প্রকল্প পরিচালক কায়সার মাহমুদ বলেন, নির্ধারিত সময়েই আনন্দ শিপইয়ার্ড জাহাজ নির্মানের কাজ শেষ করেছে। এটা পায়রা বন্দরের জন্য বড় খুশির খবর। আনন্দ শিপইয়ার্ড এন্ড শ্লিপওয়েজ লিমিটেড গুনগত মানের জাহাজ তৈরি করেছে যা দীর্ঘ মেয়াদে সেবা দেবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জাহাজ নির্মাণ প্রতিষ্ঠান আনন্দ শিপইয়ার্ড এন্ড শ্লিপওয়েজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. আব্দুল্লাহ হেল বারী বলেন, পায়রা বন্দরের জন্য নির্মিত জাহাজ রাঙ্গাবালি অত্যন্ত উন্নত মানের। এ জাহাজ ভাল সেবা দেবে বলে প্রত্যাশা করছি। দেশে জাহাজ আমদানির প্রয়োজন নেই উল্লেখ করে ড. বারী বলেন, জাহাজ নির্মান শিল্প দেশে অনেক সমৃদ্ধ হয়েছে। সম্ভাবনাময় এ খাত একদিন দেশের রপ্তানী খাত হিসেবে জায়গা করে নেবে।

আনন্দ শিপইয়ার্ড এন্ড শ্লিপওয়েজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফরুজা বারী বলেন, ‘রাঙ্গাবালি কমপক্ষে ৫০ বছর সেবা দেবে বলে আশা করছি। জাহাজ নির্মাণ শিল্পে ছোটখাটো কিছু সমস্যা আছে। তবে উন্নয়নবান্ধব সরকার এসব সমস্যা নিরসনে যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন। এটা আমাদের প্রত্যাশা।

এদিকে সম্প্রতি ৪৫ টি টার্মিনাল পন্টুন নির্মাণে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের সাথে এক চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে আনন্দ শিপইয়ার্ড এন্ড শ্লিপওয়েজ লিমিটেড। সদরঘাট, পাগলা, মিরকাদিম, নারায়ণগঞ্জ, ফতুল্লাসহ দেশের বিভিন্ন বন্দরে এসব পন্টুন স্থাপন করা হবে। গত ২২ আগস্ট বিআইডব্লিউটিএ’র সম্মেলন কক্ষে আনন্দ শিপইয়ার্ড এন্ড শ্লিপওয়েজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফরুজা বারী এবং বিআইডব্লিউটিএ’র তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। চুক্তি অনুয়ায়ী ১৮ মাসের মধ্যে পন্টুন সরবরাহ করতে হবে আনন্দ শিপইয়ার্ড এন্ড শ্লিপওয়েজ লিমিটেড। এ কাজের জন্য আনন্দ শিপইয়ার্ডকে ৯৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা দেবেন বিআইডব্লিউটিএ।

সংবাদটি শেয়ার করুন




Copyright © 2019 All rights reserved bengalreport24.com
Design BY NewsTheme