পরিবারকে মেয়ের চিঠি সরকারি বিধানুসারে আমি প্রাপ্ত বয়স্ক

বেঙ্গল রিপোর্ট২৪
মেয়েটি এখন বড় হয়ে গেছে। সরকারি বিধানুসারে সে প্রাপ্ত বয়স্ক। বলাচলে এখন তার সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় হয়েছে। সেই ধারাবাহিকতায় সে তার পছন্দ অনুযায়ী একটি ছেলেকে বিয়ে করে ফেলেছে। এটা কি তার অপরাধ? এমন প্রশ্ন জুওয়াইরিয়া হাসান নামে একটি প্রাপ্ত বয়স্ক মেয়ের।

অশ্রুসিক্ত নয়নে নিজ বাবার কাছে একটি চিঠিতে মেয়েটি লিখেছে, বাবা-মা আমি দুঃখিত। আমাকে ক্ষমা করে দিও। আমি তোমাদের কষ্ট দিয়েছি। আমার জন্ম তারিখ অনুযায়ী আমার বয়স এখন ১৮। তাই আমি আমার সিদ্ধান্ত নেয়ার অধিকার রাখি। চলতি বছর ৯ ফেব্রুয়ারি আমার পছন্দ মোতাবেক শাওনকে (মেয়েটির স্বামী) বিয়ে করেছি। আমার জন্য দোয়া করবে। আমি তোমাদের কষ্ট দিতে চাইনি। আমি শাওনকে ভালোবাসি এই কথাটা তোমাদের সহ পরিবারের সবাইকে বলছি। কিন্তু তোমরা তা মানতে চাও নাই। আমি দু’বার আত্মহত্যা করতে চেষ্টা করেছি। তারপরেও তোমরা আমার কথা বুঝতে চেষ্টা করো নাই। আমি জানি তোমরা আমাকে অনেক ভালোবাসো। আমিও তোমাদেরকে ভালোবাসি। সব বাবা-মায়েরা চায় তার সন্তান সুখে থাক। আমি শাওনের কাছে সুখে আছি।

বাবা-মায়ের উদ্দেশ্যে চিঠিতে জুওয়াইরিয়া হাসান আরও লিখেন, দয়া করে আমার শশুর বাড়ির কাউকে কোন রকম অত্যাচার করবা না। তাদের কোন দোষ নেই। আমি আমার ইচ্ছায় শাওনকে বিয়ে করেছি। আমার শশুর বাড়ির কোন লোককে অত্যাচার করলে আমি বাধ্য হবো তোমাদের সবার নামে মামলা করতে। আমি চাই না তোমাদেরকে নতুন করে কষ্ট দিতে। আমাকে মাফ করে দিও।

তার এমন চিঠির প্রেক্ষিতে ফোন করা মেয়েটির বাবা শাহিদুল হাসান বাবুকে। তিনি বলেন, আমি এমন কোন চিঠির বিষয়ে জানি না। আমার কাছে কোন চিঠি আসেনি।