‘ভুল করে’ ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে যৌথ তদন্তের দাবি করাচির

বিবৃতিতে পাকিস্তান কড়া ভাষায় জানিয়েছে, যথাসময়ে ভারত যদি এ বিষয়ে তাদের বক্তব্য না জানায় তবে ইসলামাবাদ আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছে বিষয়টি জানাবে।

‘প্রযুক্তিগত ত্রুটি’তে ভারতীয় সেনার ক্ষেপণাস্ত্র লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে পাকিস্তানের মাটিতে আছড়ে পড়ার ঘটনায় লিখিত বিবৃত দিল পাকিস্তান। এই ঘটনার যৌথ তদন্তের দাবি করেছে করাচি।

এই বিবৃতিতে পাকিস্তানের দাবি, ‘এ রকম ঘটনা রুখতে কী পদক্ষেপ করা হয়েছে, তা ভারতকে বিস্তারিত ব্যাখ্যা করতে হবে। কী ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে, তা-ও স্পষ্ট করে জানাতে হবে।’

কারাচির প্রশ্ন, ‘কেন এই ধরনের দুর্ঘটনা হওয়ার পর পাকিস্তানকে আগে জানানো হল না?’

বিবৃতিতে পাকিস্তান কড়া ভাষায় জানিয়েছে, ‘যথাসময়ে ভারত যদি এ বিষয়ে তাদের বক্তব্য না জানায়, তবে করাচি আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছে বিষয়টি জানাবে।’

পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মোঈদ ইউসুফ শুক্রবারই বলেছেন, ‘‘স্পর্শকাতর প্রতিরক্ষা প্রযুক্তি ব্যবহারের কোনও যোগ্যতাই ভারতের নেই।’’

ঘটনার সূত্রপাত গত বুধবার। সূত্রের খবর, হরিয়ানার সিরসায় সেনা মহড়া চলাকালীন ভারতীয় সেনার ওই ক্ষেপণাস্ত্র গিয়ে ঢুকে পড়ে পাকিস্তানের পঞ্জাব প্রদেশের মিলন চানু শহরে। তবে খবরটি প্রথম প্রকাশ করে রাশিয়ার সংবাদ সংস্থা স্পুটনিক। তারাই প্রথম একটি ভারতীয় ক্ষেপণাস্ত্রের লক্ষ্যভ্রষ্ট হওয়ার খবর জানায়।
এর পর বৃহস্পতিবার একটি বিবৃতি দিয়ে নয়াদিল্লি ঘটনার কথা স্বীকার করে। জানায়, ঘটনাটি ভুল করে ঘটেছিল। এ বিষয়ে উচ্চপর্যায়ের তদন্ত শুরু হয়েছে বলেও সরকারি বিবৃতিতে বলা হয়। ইউসুফের অভিযোগ, বিদেশি সংবাদমাধ্যম বিষয়টি প্রকাশ্যে আনার আগে নয়াদিল্লি এ বিষয়ে ইসলামাবাদকে কিছু জানানোর সৌজন্যটুকুও দেখায়নি।