কুতুবাগ পীরের কাছে মুরীদ হলেন মসজিদে নববীর ইমাম

বেঙ্গল রিপোর্ট২৪
বন্দর কুতুববাগ দরবার শরীফের ওরছ ও বিশ্বজাকের ইজতেমা উপলক্ষে দরবার শরীফের উদ্যোগে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার বেলা ১১ টায় নগরীর নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। আগামি ৩০ ও ৩১ জানুয়ারি বন্দর উপজেলা রেলস্টেশন সংলগ্ন কুতুববাগ দরবার শরীফের দুদিন ব্যপি ওরসের আয়োজন করা হয়েছে।

কুতুববাগ দরবার শরীফের খাদেম নাসির আহেমদ আল মুজাদ্দেদী বলেন, আমরা দরবার শরীফের পক্ষ হতে দাওয়াত দিতে এসেছি। এটা হলো পুন্যের দাওয়াত। আমাদের পীর সাহেব রাসূলের আদর্শের অনুসারি। তার কাছে হিন্দু, বৈদ্ধ, খৃষ্টান তথা সকল র্ধমের লোক আসে। আপনারা শুনে অবাক হবেন কুতুববাগ দরবার শরীফের পীর যখন মদীনায় রাসূলের রওজা জিয়ারত করতে গিয়েছেন তখন মসজিদের নববীর ইমাম তার কাছে বায়াত গ্রহন করেন। একজন ওলী কোন পর্যায় গেলে তার কাছে মসজিদে নববীর ইমাম বায়াত গ্রহন করে তা চিন্তার বিষয়।

তিনি বলেন, মুজাদ্দেদ আল ফেসানি আওলাদে রাসুলের বংশধর। তিনি নিজে এবার বাংলাদেশে আসবেন। অনেকে শরিয়ত মানে কিন্তু কিয়াম মানে না। ইসমলাম শুধু শরিয়ত,তরিকত হাকিকত ও মারেফাতে নয়, চার বিষয়ের সমন্বয়েই পরিপূর্ণ ইসলাম।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তিনি বলেন, কুতুববাগ দরবার শরীফের পীর মোজাদ্দেদীয়া তরিকার খেলাফত প্রাপ্ত পীর। এবারের ওরছে সবচেয়ে বড় তাৎপর্য হচ্ছে ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশে অবস্থিত মোজাদ্দেদীয়া তরিকার ইমাম হযরত মোজাদ্দেদ আলফেসানি (রহ) দরবার শরীফের গদিনশি পীর ও খলিফা সৈয়দ মো. সাদিক রেজা ওরছ উপলক্ষে বাংলাদেশে তাসরিফ আনবেন। তিনিই শুক্রবার ৩১ জানুয়ারি বাদ জুময়া আখেরিী মোনজাত পরিচাল না করবেন। কিভাবে একজন মানুষ আদর্শ হয়ে উঠতে পারে তার কয়েকটি বাণী তুলে ধরেণ। বাণী গুলো হলো, মানব সেবাই পরম ধর্ম। মানব জীবনের সর্বনাশের মূল হচ্ছে অহংকার ও ঘৃণা। আত্মার সংশোধন করা প্রতিটি মানুষের কর্তব্য। নামজ হল শ্রেষ্ঠ ইবাদত। অন্যের দোষ তালাশ করার আগে নিজের দোষ তালাশ করতে হবে। কখনো কারো গীবত করবে না, গীবত জেনার চেয়ে ঘৃণ্য কাজ। তার এ দাওয়াত সবার মাঝে পোছে দেয়ার আহবান জানান।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, কুতুববাগ দরবার শরীফের মোজাদ্দেদীয়া ওলামা মিশনের চেয়ারম্যান মুফতি গোলাম আম্বিয়া, হাফেজ জামাল উদ্দিন।

FacebookTwitterInstagramPinterestLinkedInGoogle+YoutubeRedditDribbbleBehanceGithubCodePenEmail